A Depressive Journey:An Enlightenment

আমার এক-দেড় বছর বয়সে জ্বর মাথায় উঠে গিয়ে convulsion হয়ে গিয়েছিলো , চোখ কপালে উঠে নীল হয়ে যাওয়া আমার ছোট্ট শরীরে রং ফিরিয়ে আনতে বাবা উন্মাদের মতো hand-pump চেপে যাচ্ছিলেন ꓲ আর আমার মা পাথর হয়ে গিয়েছিলেন এই ভেবে যে আমি মারা গেছি ꓲ এই ঘটনার দিন সকালে যখন জ্বর আস্তে আস্তে আমায় কাবু করছে আর বাবা কাজে যাওয়ার জন্য তৈরী হচ্ছে , আমি মা-এর হাঁটু চেপে ধরে বাবাকে বলেছিলাম , ‘ বাবা ! আজ অফিস যেও না , please ‘ ꓲ এগুলো অবশ্য সব পরে গল্প শোনা 

গড়িয়াহাটের বাতিল আত্মহত্যা

অতি ধীর লয়ে সময় ফুরিয়ে যাওয়ার 
টোঁপটি গিলিয়ে দিয়ে –
গড়িয়াহাটের ট্রামে চড়লাম সেদিন 
আমি, আমার ক্লান্ত বাপকে নিয়ে ꓲ

উঠেই দেখি – বাপের থেকেও অনেক বেশি 
ক্লান্ত ট্রামচালক ꓲ বাকি যে দু’চার জন –
তাঁদের কাছে যাত্রা আছে এক ,
কিন্তু এই ধীর সময়ের নেশা এমনিই বেশি !
তার ঘোরেই সবার হারিয়ে গেছে গন্তব্য-নির্ধারক ꓲ

মাথার উপর ছাদ-জোড়া গোল পাখা ꓲ
যেন কর্ণের রথের চাকার মতো !
হাওয়া তো নয় – যেন শেষ প্রাণবায়ুতে 
রেখে যায় প্রতারণার প্রতিঘাত ꓲ
সেই আমাদের প্রথম ট্রামে চড়া ꓲ
ইচ্ছে করলো গলা টিপে ধরি সে সময়ের !
এ টিকিটে হোক -শেষ ট্রামে যাতায়াত ꓲ

বাবাকে বলিনি , মরতে যাচ্ছি আমরা ꓲ
আমি আর বাবা তো – ভাগাভাগি ভগ্নাংশ !
মেরে দিয়ে, মরে গেলে, আসলে দুটোই আত্মহত্যা ꓲ
তখন কে আর নেবে ! এর জন্য দায়ের কোনো অংশ !

আজই তাঁকে চশমা ভুলতে হলো ?
আন্দাজী চোখে চাপ পড়ে গেছে বেশি ꓲ
হঠাৎ হঠাৎ গড়িয়ে পড়ছে জল ꓲ
বুড়ো চামড়ার হাতে হাতখানি রেখে, বললাম-
‘বাবা ! চলো, আজ বাড়ি ফিরে যাই !
আজ বাজারে বড়ো দুঃখী মানুষের ঢল’

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.